1. info@dainikbd24.com : দৈনিক বাংলাদেশ : দৈনিক বাংলাদেশ
শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ১০:৪৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) এর ১০ম মহাসমাবেশ উদযাপন কমিটি গঠন স্কুলের পুনর্মিলনীতে বাঁধ ভাঙ্গা উচ্ছাস জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুর রশিদ সরকারের উদ্যোগে ইফতার মাহফিল। সুন্দরগঞ্জে গরীব ও অসহায় মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ গাইবান্ধা জেলা সমিতি, রংপুর এর আলোচনা, দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত পলাশবাড়ীতে সুলভ মুল্যে ডিম ও দুধ বিক্রির উদ্বোধন করেন এ্যাড.উম্মে কুলসুম স্মৃতি এমপি নোবিপ্রবিতে ৩য় বারের মতো ‘গবেষণায় হাতেখড়ি’ অনুষ্ঠিত গাইবান্ধায় ১২০ টাকায় পুলিশে নিয়োগ পেলেন ৫০ জন তরুণ ও ৯জন তরুণী ক্যান্সার রোগে আক্রান্ত দরিদ্র মঞ্জুরানী সবার সাহায্য নিয়ে বাঁচাতে চায়। সাদুল্লাপুরে দুর্ণীতির অভিযোগে ইউপি চেয়ারম্যানের পদশূন্য ঘোষণা

নোবিপ্রবিতে ৩য় বারের মতো ‘গবেষণায় হাতেখড়ি’ অনুষ্ঠিত

মোঃ আবদুল আহাদ,নোবিপ্রবি প্রতিনিধিঃ
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ২৫ মার্চ, ২০২৪

রবিবার ( ২৪ মার্চ) বিশ্ববিদ্যালয়ের হাজী মোহাম্মদ ইদ্রিস অডিটোরিয়ামে সকাল ১১.০০ টায় প্রায় ৪০০ শিক্ষার্থীদের উপস্থিতিতে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

এসময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা বিভাগে প্রধান ও ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা বিভাগের পরিচালক অধ্যাপক ড. বিপ্লব মল্লিক, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সায়েন্স ক্লাবের উপদেষ্টা ও ফার্মেসি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম, মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. ফিরোজ আহমেদ। এ ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন উপ-উপদেষ্টা এবং বায়োটেকনোলজি এন্ড জেনেটিক ইন্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রধান ড. মফিজুল ইসলাম।

উক্ত অনুষ্ঠানে কি-নোট স্পিকার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জেনেটিক ইন্জিনিয়ারিং এন্ড বায়োটেকনোলজি বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ নাজমুল আহসান, অন্যান্য স্পিকারদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নোবিপ্রবির ফার্মেসি বিভাগের প্রভাষক আব্দুল বারেক স্যার এবং বায়োটেকনোলজি এন্ড জেনেটিক ইন্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রভাষক আব্দুল কাদের।

গবেষণা নিয়ে বিস্তারিত ধারণা দিতে গবেষণায় হাতেখড়ি অনুষ্ঠানটিকে গবেষনার সংক্ষিপ্ত পরিচয়, বৈজ্ঞানিকভাবে গবেষণার ধারণা প্রদর্শন, বৈজ্ঞানিক পোস্টার প্রদর্শন, রেফারেন্সিং এর সংক্ষিপ্ত ধারণা এবং ‘দ্যা আর্ট অব সায়েন্টিফিক কমিনিউকেশনসহ মোট ৬ টি সেগমেন্ট এ ভাগ করা হয়। এ ছাড়াও শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে গ্রিন ক্যাম্পাস ইনিশিয়েটিভ নিয়ে আয়োজিত প্রজেক্টের উপর প্রেজেন্টেশন দেওয়া হয়।

 

সায়েন্স ক্লাবের আয়োজনকে সাধুবাদ জানিয়ে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আব্দুল বাকী বলেন, শিক্ষার্থীরা গবেষণার মাধ্যমে নিজেদের জ্ঞানের বিকাশ ঘটাতে পারে। কোন বিষয় নিয়ে গবেষণা করবে এটা ঠিক করাটা খুবই জরুরি। কি নিয়ে গবেষণা করতে চাই, টাইটেলটা কি হবে এটা মাথা থেকে আসতে হবে। এটা যদি কপি পেস্ট করো তাহলে সেটা প্লেজারিজম এ ধরা পড়ে যাবে।

প্রায় সময় দেখা যায় অনেকে টাকা দিয়ে তার রিসার্চ পেপার পাবলিশ করায়। বলতে গেলে অনেক ভালো মানের জার্নালে তারা টাকা দিয়ে পেপার পাবলিশ করিয়ে নেয়। তবে এখনো অনেক জার্নাল আছে যেখানে সৎভাবে পেপার পাবলিশ হয়। তোমাদের কাছে আমার অনুরোধ গবেষণা হয়তো তোমাকে টাকা দিবে না, কিন্তু জ্ঞান দিবে। এটার জন্য পাগলামি লাগে। যার যত বেশি পাগলামি গবেষণার প্রতি সে তত বেশি এগিয়ে যাবে।

কি-নোট স্পিকারের বক্তব্যে অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ নাজমুল আহসান গবেষণা এবং গবেষণার প্রকারভেদ, কখন কিভাবে গবেষণা শুরু করবে তা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন। তিনি বলেন, বিজ্ঞান অনুমান নির্ভর তথ্যের বদলে সবসময় নির্ভরযোগ্য তথ্যে বিশ্বাসী। গবেষণা চিন্তার বিকাশ ঘটাতে সহযোগিতা করে। গবেষণা অজানা জিনিসকে জানতে সাহায্য করে তবে মানবতার বৃহত্তর কল্যানে তার ফলাফল বিভিন্ন ভাবে প্রকাশ করতে হয়। সব গবেষণার ইতিবাচক ও নেতিবাচক প্রভাব থাকে এমনকি বিজ্ঞানেরও সীমাবদ্ধতা রয়েছে। সেই সীমাবদ্ধতাকে কাটিয়ে উঠতে হবে গবেষণার মাধ্যমে।

তিনি আরে বলেন, গবেষণার জন্য আগ্রহ, সুযোগ সুবিধা ও অর্থ ৩ টি জিনিসের সমন্বয় দরকার। কোনো একটি ফিল্ডে গবেষণা করতে হলে সেই ফিল্ড সংশ্লিষ্ট পর্যাপ্ত জ্ঞান রাখতে হবে।
এ ছাড়াও তিনি প্রাথমিক গবেষণা ও ব্যবহারিক গবেষণার বিভিন্ন দিক, গবেষণায় চ্যালেঞ্জ ইত্যাদি বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন।

সায়েন্স ক্লাবের উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম বলেন, তরুণরাই একটি জাতির মূল সম্পদ। এদের মধ্যে থাকে তীব্র অনুসন্ধিৎসা ও অদম্য কর্মস্পৃহা, কিছু একটা করার জন্য সদা অস্থিরতা। শৈশব পেরিয়ে যখন কৈশোরে পৌঁছে, তারুণ্যে পদার্পণ করে, চারিদিকে অনেক কিছুই তাদের হাতছানি দেয়, কাছে টেনে নিতে চায়। পরিবার ও শ্রেণীকক্ষের বাইরেও বিশাল এক জগতের সঙ্গে তাদের নিরন্তর মিথস্ক্রিয়া ঘটে। এখানে তাদের যেমন নিত্য-নতুন অনেক কিছু শেখার সুযোগ হয়।

তিনি আরো বলেন, এ অবস্থায় কিশোর-তরুণদের এই মনোদৈহিক চাহিদার যোগানে এবং বিপথগামী হওয়া থেকে সুরক্ষা দানে প্রয়োজন তাদের বিভিন্ন রকম সৃষ্টিশীল ও গঠনমূলক কর্মকাণ্ডে ব্যাপৃত করা। এতে করে তারা তাদের সমবয়সীদের পাশাপাশি সিনিয়র-জুনিয়রদের সঙ্গে মেশার সুযোগ পায়, সামষ্টিক পরিসরে কাজ করার মধ্য দিয়ে তাদের মধ্যে ভবিষ্যতে কাজ করার উপযোগী দক্ষতা ও নেতৃত্ব গুণের বিকাশ ঘটে। আমি আশা করি নোবিপ্রবি সায়েন্স ক্লাব নোবিপ্রবি শিক্ষার্থীদের এসব গুণের বিকাশ ঘটাতে সক্ষম হবে। তার ফলাফল দেখা যায় বিভিন্ন জাতীয় বিজ্ঞান প্রতিযোগিতায়।

সায়েন্স ক্লাবের উপদেষ্টা ও মাইক্রোবায়োলজি ডিপার্টমেন্টের প্রধান অধ্যাপক ড. ফিরোজ আহমেদ বলেন, মানব সভ্যতা আজ যে পর্যায়ে উপনীত হয়েছে, তাতে মূল ভূমিকা রেখেছে বিগত কয়েক শতকে বিজ্ঞানের বিস্ময়কর সব আবিষ্কার। বিজ্ঞানের কল্যাণে কৃষি ও শিল্পে বৈপ্লবিক পরিবর্তন এসেছে। শত-সহস্র বছর ধরে মানুষ যে সব রোগ-ব্যাধির কাছে অসহায় ছিল, তার অনেকগুলোই আজ মানুষের নিয়ন্ত্রণে।

বিজ্ঞানের এ যুগে একটি জাতি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে এগিয়ে যেতে না পারলে তার ভাগ্যাকাশে পরিবর্তন আসার সম্ভাবনা সুদূর পরাহত। এর জন্য প্রয়োজন আমাদের এটিচ্যুডে পরিবর্তন, প্রয়োজন এমন একটি প্রজন্ম গড়ে তোলা যারা হবে বিজ্ঞান চর্চায় নিবেদিত, আত্মোৎসর্গীকৃত।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর...

© All Rights Reserved© 2022 DainikBD24

Theme Customized BY Sky Host BD