1. info@dainikbd24.com : দৈনিক বাংলাদেশ : দৈনিক বাংলাদেশ
সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ১০:৩০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
সাঘাটা-ফুলছড়ি উপজেলা যুবলীগের যৌথ বিশেষ বর্ধিতসভা ২০২২ অনুষ্ঠিত গাইবান্ধায় চাচার ছোড়া অ্যাসিডে দগ্ধ ২ ভাই গোবিন্দগঞ্জে আন্তঃজেলা সয়াবিন তৈল প্রতারক চক্রোর ২ সদস্য গ্রেফতার জামালপুরে সৎ ভাইয়ের ছুরিকাঘাতে বড় ভাই খুন অভিনব কায়দায় ফুলের টবে মাদক পরিবহন ৪০০ পিচ ইয়াবাসহ গ্রেফতার ১ পঞ্চগড় জেলার বোদায় নৌকা ডুবি শিশু-নারীসহ ২৪ জনের মৃত্যু সুন্দরগঞ্জে বিশ্ব নদী দিবস উদযাপন মোনোনয়ন না পেয়েও যুবলীগ নেত্রী শাপলার নৌকা মার্কার গণসংযোগ ও ভোট প্রার্থনা গাইবান্ধা-৫ (ফুলছড়ি-সাঘাটা) আসনের উপনির্বাচনের প্রতিক বরাদ্দ হাসপাতালের অনিয়ম দূর্নীতি বন্ধের দাবিতে গাইবান্ধায় প্রতিবাদ সমাবেশ

এক লাখ টাকা ঋণের জন্য সুদে-আসলে সাড়ে ছয় লাখ টাকা দাবি।ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে যুবকের আত্মহত্যা।

নিজম্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ২০ আগস্ট, ২০২২

স্টাফ রিপোর্টারঃ

 

সুনামগঞ্জে ব্যবসা করার জন্য এক সুদ কারবারির কাছ থেকে সুদে এক লাখ টাকা বছর তিনেক আগে এনেছিলেন তিনি।এই সময়ে সুদ হিসেবে সাড়ে তিন লাখ টাকা সুদ কারবারিকে দিয়েছিলেন তিনি।কিন্তু আরও টাকা চাওয়ায় মানসিক চাপে ওই ব্যক্তি ফেসবুকে সুইসাইড নোট পোস্ট দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন।

সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলা বালিজুরী ইউনিয়নের পাতারি গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে।

বৃহস্পতিবার(১৮ আগস্ট)রাতে গ্রামের একটি বটগাছে ঝুলন্ত অবস্থায় ওই ব্যক্তির লাশ পাওয়া যায়।

মারা যাওয়া ব্যক্তির নাম ফয়সল আহমদ সৌরভ (২৫)। এর আগে তিনি ফেসবুকে একটি পোস্ট দিয়ে তাঁর মৃত্যুর জন্য দুজনকে দায়ী করেন।ফয়সল আহমদের বাড়ি সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলা বালিজুরী ইউনিয়নের পাতারি গ্রামে। তাঁর স্ত্রী ও চার মাস বয়সী এক মেয়ে আছে।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে একটি পোস্ট দেন ফয়সল।তাতে তিনি লিখেন,‘আমি গলায় দড়ি দিলাম তুই রফিকের লাগি। আমাকে কাবু করে লাশ বানাইলি তুই। ভালো থাক বেইমান। সফিকের কাছ থেকে এক লাখ টাকা সুদে আনছিলাম,তিন লাখ টাকা দেওয়ার পরও এখনো সাড়ে তিন লাখ টাকা পায়। এই রফিক আর সফিকের লাগি আত্মহত্যা করলাম।’

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে,ফয়সল আহমদ বালু-পাথরের ব্যবসা করতেন।বছর তিনেক আগে উপজেলার একই ইউনিয়নের আনোয়ারপুর গ্রামের সফিক মিয়ার (৩৮) কাছ থেকে এক লাখ টাকা সুদে এনেছিলেন। এ পর্যন্ত তিনি তিন লাখ টাকা দিয়েছেন। সফিকের দাবি, তাঁকে আরও সাড়ে তিন লাখ টাকা দিতে হবে। এ জন্য ফয়সলকে চাপ দিচ্ছিলেন। রফিক মিয়ার (৪৫) বাড়ি একই উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের নুরপুর গ্রামে। তাঁর সঙ্গে ফয়সলের ব্যবসায়িক লেনদেন ছিল। গত বৃহস্পতিবার সফিক ও রফিক একসঙ্গে আরও কয়েকজনকে নিয়ে টাকার জন্য ফয়সলকে চাপ দেন। এ সময় তাঁকে গালিগালাজ করেন তাঁরা। একপর্যায়ে রফিক মিয়া ফয়সলের একটি পাথরবোঝাই নৌকা আটকে রাখেন।

সন্ধ্যায় ফয়সলের ফেসবুক পোস্ট দেখে সবাই তাঁকে খুঁজতে শুরু করেন। পরে রাত সাড়ে আটটার দিকে গ্রামের পশ্চিম পাশের একটি বটগাছে ঝুলন্ত অবস্থায় তাঁর লাশ পাওয়া যায়।

ফয়সলের বাবা আজিজুর রহমান বলেন, ‘এক লাখ টাকায় তিন লাখ টাকা দেওয়ার পরও সফিক টাকার জন্য ফয়সলকে চাপ দিত। নানাভাবে হুমকি দিত। সফিক ও রফিকের চাপেই আমার ছেলে আত্মহত্যা করেছে। আমরা তাদের বিরুদ্ধে মামলা করব।’

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে সফিক মিয়ার মুঠোফোনে কল করলে তা বন্ধ পাওয়া যায়। ঘটনার পর সফিক ও রফিক এলাকা থেকে পালিয়ে গেছেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আলী নেওয়াজ বলেন, ‘ফয়সল খুবই ভালো ছেলে ছিল। টাকার বিষয়টি পরিবারকেও সে জানায়নি। টাকার চাপ সইতে না পেরেই সে আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছে।’

এ ব্যাপারে তাহিরপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সোহেল রানা প্রথম আলোকে, ফয়সল আহমদের পরিবার থানায় মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছে। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে।

তথ্যসূত্র : দৈনিক প্রথম আলো।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর...
© All Rights Reserved © 2022 DainikBD24
Theme Customized BY Sky Host BD