দুই মাসেও গ্রেফতার হয়নি সাদুল্লাপুরের ৫ম শ্রেণীর শিশু ধর্ষক ফারুক হোসেন।


দৈনিক বাংলাদেশ প্রকাশের সময় : নভেম্বর ১৮, ২০২১, ৪:৩১ অপরাহ্ণ / ১৭৭
দুই মাসেও গ্রেফতার হয়নি সাদুল্লাপুরের ৫ম শ্রেণীর শিশু ধর্ষক ফারুক হোসেন।

গাইবান্ধার সাদুল্লাপুরে পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রী ধর্ষণ মামলার আসামি ফারুক হোসেনকে (২৩) দুই মাসেও গ্রেফতার করতে পারেনি সাদুল্লাপুর থানা পুলিশ। আসামি গ্রেফতার না হওয়ায় এলাকায় অসন্তোষ বিরাজর করছে।পাশাপাশি নিরাপত্তাহীনতা ও হতাশায় ভুগছেন ধর্ষণের শিকার ওই ছাত্রীর পরিবার।

গত ১৮ সেপ্টেম্বর ভুক্তভোগীর মা বাদি হয়ে ফারুক হোসেনকে একমাত্র আসামি করে সাদুল্লাপুর থানায় ধর্ষণের মামলা দায়ের করেন।

 

অভিযুক্ত আসামি ফারুক হোসেন সাদুল্লাপুর উপজেলার দামোদরপুর ইউনিয়নের উত্তর দামোদরপুর গ্রামের ইয়াহিয়া খানের ছেলে।

এরআগে,১৭ সেপ্টেম্বর রাতে উত্তর দামোদরপুর গ্রামের নিজ বাড়িতে ধর্ষণের শিকার হয় ওই ছাত্রী।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়,ফারুক হোসেন দীর্ঘদিন ধরেই ৫ম শ্রেণীর ওই ভুক্তভোগী ছাত্রীকে উক্তাক্ত করে আসছিলো। ঘটনার দিন গত ১৭ সেপ্টেম্বর রাত ১১টার দিকে মায়ের সাথে বাহিরের বাথরুমে যায় শিশু টি।এ সুযোগে ধর্ষক ফারুক ঘরে ঢুকে খাটের নিচে লুকিয়ে থাকে।পরে ঘরে এসে মা-মেয়ে শুয়ে পড়েন।এরপর মা ঘুমিয়ে পড়লে শিশুটির মুখ চেপে ধরে ভয়ভীতি দেখিয়ে ইচ্ছের বিরুদ্ধে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে ফারুক।ঘটনা টের পেয়ে শিশুটির মা চিৎকার করলে বাড়ির লোকজন জেগে উঠলে ঘর থেকে কৌশলে দৌড়ে অন্ধকারে পালিয়ে যায় ফারুক।

ভুক্তভোগী পরিবারের অভিযোগ,ঘটনার পর এলাকাতেই ঘুরে বেড়াচ্ছে আসামি ফারুক।বারবার প্রশাসনকে বলেও পুলিশ তাকে গ্রেফতার না করার বিষয়টি রহস্যজনক।এদিকে আসামিরা প্রভাবশালী হওয়ায় ঘটনাটি ধামাচাপার চেষ্টাসহ তাদের বিভিন্ন হুমকি-ধামকি দেয়া হচ্ছে।এতে নিরাপত্তহীনতার পাশাপাশি চরম হতাশায় ভুগছেন বলেও দাবি তাদের।

এ দিকে মামলার পর ওই ছাত্রীর ডাক্তারী পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে।ঘটনার পর থেকেই আসামি ফারুক কে
গ্রেফতার করতে পারছেনা সাদুল্লাপুর থানা প্রশাসন।

৫ম শ্রেণীর শিশু ধর্ষণ মামলার আসামী গ্রেফতার না হওয়ার বিষয়ে সাদুল্লাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার রায়ের কাছে জানার জন্য ফোন দেওয়া হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।